বল্টু যে বাড়িতে কাজ করে,
ঐ বাড়ীর মালিকের
হুইস্কির বোতল থেকে
দু-এক পেগ চুরি করে
খায় আবার সমপরিমাণ
পানি মিশিয়ে রেখে দেয়।
.
.
—মালিকের সন্দেহ হতো কিন্তু কিছু বলত না।
কিন্তু যখন
এটা রোজ হতে লাগলো,,
তখনএকদিন ড্রইং রুমে
বৌয়ের সাথে বসে চিৎকার করে
বল্টুকে ডাকতে লাগল।
.
.
—বল্টু তখন রান্না ঘরে রান্না করছিল।
.
.
বল্টু জবাব দিল- জি মালিক।
.
.
মালিক বললো আমার হুইস্কির বোতলথেকে
হুইস্কি খেয়ে পানি মিশিয়ে কে রাখে?
.
.
—রান্না ঘর থেকে কোন উত্তর এল না .
.
—মালিক চিৎকার করে একই প্রশ্ন আবার. করলেন।
কিন্তু কোন জবাব নেই।
.
.
—মালিক রেগে রান্নাঘরে গিয়ে;জিজ্ঞেস
করলেন এসব কি হচ্ছে,
যখন তোর নাম ধরে ডাকছি উত্তর দিচ্ছিস
আর যখন অন্য কিছু জিেজ্ঞস করছি
তখন উত্তর দিচ্ছিস না?
.
.
—বল্টু: -মালিক রান্না ঘর থেকে শুধু নাম শোনা যায়
অন্য কিছু শোনা যায় না।
.
.
—মালিক: চুপ মিথ্যাবাদী এরকম আবার হয় নাকি?
.
.
—তুই ড্রইং রুমে যা সেখান থেকে আমাকে প্রশ্ন
কর আমি উত্তর দিচ্ছি..
.
.
—বল্টু ড্রইংরুমে গিয়ে মালিকের বউয়ের পাশেব
সে আওয়াজ দিল..
.
.
—মালিক: হ্যাঁ বল্টু শুনতে পাচ্ছি!
.
.
—বল্টু :বাড়িতে কাজের মেয়েকে মোবাইল কে
কিনে দিছে?
.
.
—কোন উত্তর নেই …
.
.
—আবার প্রশ্ন করলো কাজের মেয়েকে
পার্কে ঘুরাতে
কে নিয়ে গেছিল?
.
.
—ওপাশ থেকে তখনো কোন উত্তর নেই।
.
.
—মালিক বেরিয়ে এসে তুই ঠিক বলছিস তো বল্টু
রান্না ঘর থেকে শুধু নামটাই শোনা যায় আর অন্য কিছু
শোনাযায় না আজব ব্যাপার

Advertisements